বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

  ঢাকা, বাংলাদেশ  |  আজকের পত্রিকা  |  ই-পেপার  |  আর্কাইভ   |  কনভার্টার  |   অ্যাপস  |  বেটা ভার্সন

বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

  |  ঢাকা, বাংলাদেশ  |  আজকের পত্রিকা  |  ই-পেপার  |  আর্কাইভ   |   কনভার্টার  |   অ্যাপস  |  বেটা ভার্সন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ ও ৩ আসনের উপনির্বাচনে বিদ্রোহী চার

আওয়ামী লীগে ‘ঘরের শত্রু বিভীষণ’

বার্তা সরণি প্রতিবেদন

বার্তা সরণি প্রতিবেদন

| অনলাইন সংস্করণ

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:
আগামী পয়লা ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ ও ৩ আসনের উপনির্বাচনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বাইরে চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বলছেন, এদের তিনজন আওয়ামী পরিবারেরই সদস্য। এমন ঘটনাকে ভোটের মাঠে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর জন্য ‘ঘরের শত্রু বিভীষণ‘ হিসেবে দেখছেন তারা।

এই দুই আসনে ৬ জন করে ভোটের মাঠে প্রার্থী মোট ১২ জন। এর মধ্যে দুই আসনেই দুজন করে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেন রাজশাহী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আলী সরকার, গোমস্তাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খুরশিদ আলম বাচ্চু। তারা দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পেয়ে বিদ্রোহী হয়েছেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া জিয়াউর রহমান বুধবার দুপুরে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এছাড়া বিএনএফের প্রার্থী নবীউল ইসলাম, জাতীয় পার্টির (জাপা) মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক ও জাকের পার্টির গোলাম মোস্তফাও এই আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

নির্বাচনের সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান বলেন, ‘ছয়জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন, এর মধ্যে দুইজন স্বতন্ত্র প্রার্থী।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনে শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ব্যবসায়ী ও জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শামিউল হক লিটন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে সংবাদকর্মীদের তিনি বলেন, ‘আমি আওয়ামী পরিবারেরই সন্তান। তবে কখনো কখনো নীতির বাইরে যেতে হয়, তাই আমি স্বতন্ত্রভাবে ভোট করছি।’

সর্বশেষ চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন সামিউল হক লিটন। সে সময় দলীয় প্রার্থী হতে না পেরে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। এ কারণে জেলা যুবলীগের পদও হারান তিনি। এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহরিমা। তবে তিনি রাজনৈতিকভাবে খুব পরিচিত নয়। তবে তার পরিবার বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে।

এদিকে শেষ দিনে মনোনয়নপত্র জমা দেন জাতীয় পার্টিতে (জাপা) সদ্য যোগ দেয়া ক্রীড়াসংগঠক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, বিএনএফের কামরুজ্জামান খান। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া আব্দুল ওদুদ বুধবার মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। এছাড়া বুধবার মনোনয়ন জমা দেন জাসদের মনিরুজ্জামান মনিরও। নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে মোট ছয় প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এর মধ্যে দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীত বস্ত্র বিতরণ করলো মোহাম্মদ নাসিম ফাউন্ডেশন

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্র না থাকায় খড়কুটো জ্বালিয়ে আগুনের সাহায্যে শীত নিবারণ করছে পাবনার সাঁথিয়াবাসী। শীতের তীব্রতা অনেকাংশই বেশি এখানে। এছাড়া গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির...

মেধাবি সিয়ামের পড়ালেখার দায়িত্ব নিলেন মানবিক এমপি জয়

মানবতায় এগিয়ে আসলেন সিরাজগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য ও উত্তরবঙ্গের কৃতি সন্তান প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়। এসএসসি পরীক্ষায় বাণিজ্য বিভাগ থেকে রাজশাহী বোর্ডে প্রথম...

বঙ্গবন্ধুকে ফিরে না পেলে স্বাধীনতা পূর্ণতা পেতো না : মেয়র তাপস

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যদি ১৯৭২ সালের ১০...

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:
আগামী পয়লা ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ ও ৩ আসনের উপনির্বাচনে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বাইরে চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বলছেন, এদের তিনজন আওয়ামী পরিবারেরই সদস্য। এমন ঘটনাকে ভোটের মাঠে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর জন্য ‘ঘরের শত্রু বিভীষণ‘ হিসেবে দেখছেন তারা।

এই দুই আসনে ৬ জন করে ভোটের মাঠে প্রার্থী মোট ১২ জন। এর মধ্যে দুই আসনেই দুজন করে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দেন রাজশাহী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আলী সরকার, গোমস্তাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য খুরশিদ আলম বাচ্চু। তারা দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পেয়ে বিদ্রোহী হয়েছেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া জিয়াউর রহমান বুধবার দুপুরে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন। এছাড়া বিএনএফের প্রার্থী নবীউল ইসলাম, জাতীয় পার্টির (জাপা) মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক ও জাকের পার্টির গোলাম মোস্তফাও এই আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

নির্বাচনের সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান বলেন, ‘ছয়জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন, এর মধ্যে দুইজন স্বতন্ত্র প্রার্থী।’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনে শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ব্যবসায়ী ও জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি শামিউল হক লিটন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে সংবাদকর্মীদের তিনি বলেন, 'আমি আওয়ামী পরিবারেরই সন্তান। তবে কখনো কখনো নীতির বাইরে যেতে হয়, তাই আমি স্বতন্ত্রভাবে ভোট করছি।’

সর্বশেষ চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন সামিউল হক লিটন। সে সময় দলীয় প্রার্থী হতে না পেরে বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। এ কারণে জেলা যুবলীগের পদও হারান তিনি। এ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহরিমা। তবে তিনি রাজনৈতিকভাবে খুব পরিচিত নয়। তবে তার পরিবার বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে জানা গেছে।

এদিকে শেষ দিনে মনোনয়নপত্র জমা দেন জাতীয় পার্টিতে (জাপা) সদ্য যোগ দেয়া ক্রীড়াসংগঠক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, বিএনএফের কামরুজ্জামান খান। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া আব্দুল ওদুদ বুধবার মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। এছাড়া বুধবার মনোনয়ন জমা দেন জাসদের মনিরুজ্জামান মনিরও। নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক এ কে এম গালিভ খান বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে মোট ছয় প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। এর মধ্যে দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী।