বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

  ঢাকা, বাংলাদেশ  |  আজকের পত্রিকা  |  ই-পেপার  |  আর্কাইভ   |  কনভার্টার  |   অ্যাপস  |  বেটা ভার্সন

বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

  |  ঢাকা, বাংলাদেশ  |  আজকের পত্রিকা  |  ই-পেপার  |  আর্কাইভ   |   কনভার্টার  |   অ্যাপস  |  বেটা ভার্সন

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে

ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে কেউ হারাতে পারবে না: সুজিত রায় নন্দী

বার্তা সরণি প্রতিবেদন

বার্তা সরণি প্রতিবেদন

| অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক জননেতা বাবু সুজিত রায় নন্দী বলেছেন, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে কেউ হারাতে পারবে না। আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে তাহলে পৃথিবীর কোন শক্তি নাই আমাদের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে পারে। তাই আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে দেশ, দল ও জনগণের জন্য কাজ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সুজিত রায় নন্দী বলেন, তৃণমূলের নেতাকর্মীরাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের প্রাণ শক্তি। তারাই আওয়ামী লীগকে যুগে যুগে টিকিয়ে রেখেছে। তৃণমূল নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে তৃণমূল নেতাকর্মীরা সবসময় কাজ করেছে। আর বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে উন্নয়নের ভিত তৈরি করে দিয়েছেন। তার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে।তিনি বলেন, আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে আগামীদিনে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আবারো ক্ষমতায় আসবে। তাহলে এ দেশের মানুষ ভালো থাকবে। দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে।’
নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীন বিরোধ মেটাতে বিবাদমান পক্ষগুলোকে নিয়ে কেন্দ্রিয় নেতাদের উপস্থিতিতে বিশেষ বর্ধিত হয়েছে।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। সভার শুরুতে আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, ‘আজকে আমরা জেলা আওয়ামী লীগের একটি বিশেষ বর্ধিত সভায় বসেছি এবং মনটা ভরে উঠেছে যে আজকে আমাদের ঘরটি আলোয় আলোকিত হয়েছে। আমরা এ সভায় কিছু সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো কিভাবে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগকে অধিকতর শক্তিশালী করা যায়। আমাদের মধ্যে সামান্য কিছু যে মনের অমিল আছে, সেগুলোকে আমরা কিভাবে ওয়ার্কিং রিলেশান ডেভলপ করে একসঙ্গে কাজ করতে পারি সে বিষয়ে আলোচনা করবো এবং সিদ্ধান্ত নিব। কিভাবে আমরা তৃণমূলের সম্মেলনগুলো সম্পন্ন করে আমাদের দলকে আরো অধিকতর শক্তিশালী করতে পারি সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিব।’
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন আরো বলেন, ‘৭৫ পরবর্তীতে যারা ফ্রিডম পার্টি করেছেন, যারা বিএনপি করেছেন এবং যারা জামায়েতে ইসলাম করেন সবাই একই সূত্রে গাঁথা। একই সংগঠনের বহুমাত্রিক নাম হচ্ছে ফ্রিডম পার্টি, বিএনপি এবং জামায়েতে ইসলাম। এরা কেউ ১৯৭১ কে মানে না, বাংলাদেশকে বিশ্বাস করে না এবং বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অব্যাহতভাবে ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। এই ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে বাংলাদেশর জনগণের নেত্রী, বিশ্বের অন্যতম বিজ্ঞ প্রধানমন্ত্রী, বিশ্বের অন্যতম বিজ্ঞ রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে যে ভয়াবহ পরিস্থিকিত হবার কথা ছিল সেটিকে সামাল দিয়ে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করছেন। আমরা বিশ্বাস করি খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে দ্রব্যমূল্য কমে আসবে, এখানে কোন খাদ্য সংকট হবে না, এখানে জ্বালানি সংকট হবে না, আমাদের রপ্তানী অধিক হারে বৃদ্ধ পাবে, আমাদের রিজার্ভ কখনোই ৩৫ এর নিচে আসবে না।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বে বাংলাদেশ বর্তমানে শান্তির আবাস ও উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল একটি সুখী সমৃদ্ধ উন্নত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার। ঘাতকের বুলেটে সে স্বপ্ন থমকে গিয়েছিল। তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী আর সাহসী গতিশীল নেতৃত্বে গত একযুগে আজ বাংলাদেশ জাতির পিতার স্বপ্ন পুরোপুরি বাস্তবায়নের পথে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে। বিশ্বের বুকে এ দেশ এখন উন্নয়নে বিস্ময় হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে।
সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক অধ্যক্ষ এইচ এম খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম। সভায় নোয়াখালীর বিভিন্ন আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্যগণ, জেলা পরিষদের প্রশাসক, উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, উপজেলা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ আহবায়ক কমিটির ৮৪ জন সদস্যের মধ্যে ৮৩ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।
সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক সহিদ উল্লাহ খাঁন সোহেল জানান, সভায় আগামি ৩ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয় এবং জেলা সম্মেলনের আগে মেয়াদ উত্তীর্ণ উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলন সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীত বস্ত্র বিতরণ করলো মোহাম্মদ নাসিম ফাউন্ডেশন

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্র না থাকায় খড়কুটো জ্বালিয়ে আগুনের সাহায্যে শীত নিবারণ করছে পাবনার সাঁথিয়াবাসী। শীতের তীব্রতা অনেকাংশই বেশি এখানে। এছাড়া গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির...

মেধাবি সিয়ামের পড়ালেখার দায়িত্ব নিলেন মানবিক এমপি জয়

মানবতায় এগিয়ে আসলেন সিরাজগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য ও উত্তরবঙ্গের কৃতি সন্তান প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়। এসএসসি পরীক্ষায় বাণিজ্য বিভাগ থেকে রাজশাহী বোর্ডে প্রথম...

বঙ্গবন্ধুকে ফিরে না পেলে স্বাধীনতা পূর্ণতা পেতো না : মেয়র তাপস

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যদি ১৯৭২ সালের ১০...

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক জননেতা বাবু সুজিত রায় নন্দী বলেছেন, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে কেউ হারাতে পারবে না। আওয়ামী লীগ যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে তাহলে পৃথিবীর কোন শক্তি নাই আমাদের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে পারে। তাই আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে দেশ, দল ও জনগণের জন্য কাজ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সুজিত রায় নন্দী বলেন, তৃণমূলের নেতাকর্মীরাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের প্রাণ শক্তি। তারাই আওয়ামী লীগকে যুগে যুগে টিকিয়ে রেখেছে। তৃণমূল নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে তৃণমূল নেতাকর্মীরা সবসময় কাজ করেছে। আর বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে উন্নয়নের ভিত তৈরি করে দিয়েছেন। তার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে যাচ্ছে।তিনি বলেন, আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে আগামীদিনে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আবারো ক্ষমতায় আসবে। তাহলে এ দেশের মানুষ ভালো থাকবে। দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে।’
নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীন বিরোধ মেটাতে বিবাদমান পক্ষগুলোকে নিয়ে কেন্দ্রিয় নেতাদের উপস্থিতিতে বিশেষ বর্ধিত হয়েছে।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। সভার শুরুতে আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, ‘আজকে আমরা জেলা আওয়ামী লীগের একটি বিশেষ বর্ধিত সভায় বসেছি এবং মনটা ভরে উঠেছে যে আজকে আমাদের ঘরটি আলোয় আলোকিত হয়েছে। আমরা এ সভায় কিছু সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবো কিভাবে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগকে অধিকতর শক্তিশালী করা যায়। আমাদের মধ্যে সামান্য কিছু যে মনের অমিল আছে, সেগুলোকে আমরা কিভাবে ওয়ার্কিং রিলেশান ডেভলপ করে একসঙ্গে কাজ করতে পারি সে বিষয়ে আলোচনা করবো এবং সিদ্ধান্ত নিব। কিভাবে আমরা তৃণমূলের সম্মেলনগুলো সম্পন্ন করে আমাদের দলকে আরো অধিকতর শক্তিশালী করতে পারি সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিব।’
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন আরো বলেন, ‘৭৫ পরবর্তীতে যারা ফ্রিডম পার্টি করেছেন, যারা বিএনপি করেছেন এবং যারা জামায়েতে ইসলাম করেন সবাই একই সূত্রে গাঁথা। একই সংগঠনের বহুমাত্রিক নাম হচ্ছে ফ্রিডম পার্টি, বিএনপি এবং জামায়েতে ইসলাম। এরা কেউ ১৯৭১ কে মানে না, বাংলাদেশকে বিশ্বাস করে না এবং বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অব্যাহতভাবে ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। এই ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে বাংলাদেশর জনগণের নেত্রী, বিশ্বের অন্যতম বিজ্ঞ প্রধানমন্ত্রী, বিশ্বের অন্যতম বিজ্ঞ রাষ্ট্রনায়ক জননেত্রী শেখ হাসিনা রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে যে ভয়াবহ পরিস্থিকিত হবার কথা ছিল সেটিকে সামাল দিয়ে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করছেন। আমরা বিশ্বাস করি খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে দ্রব্যমূল্য কমে আসবে, এখানে কোন খাদ্য সংকট হবে না, এখানে জ্বালানি সংকট হবে না, আমাদের রপ্তানী অধিক হারে বৃদ্ধ পাবে, আমাদের রিজার্ভ কখনোই ৩৫ এর নিচে আসবে না।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বে বাংলাদেশ বর্তমানে শান্তির আবাস ও উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল একটি সুখী সমৃদ্ধ উন্নত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার। ঘাতকের বুলেটে সে স্বপ্ন থমকে গিয়েছিল। তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার দূরদর্শী আর সাহসী গতিশীল নেতৃত্বে গত একযুগে আজ বাংলাদেশ জাতির পিতার স্বপ্ন পুরোপুরি বাস্তবায়নের পথে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে। বিশ্বের বুকে এ দেশ এখন উন্নয়নে বিস্ময় হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে।
সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক অধ্যক্ষ এইচ এম খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম। সভায় নোয়াখালীর বিভিন্ন আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্যগণ, জেলা পরিষদের প্রশাসক, উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, উপজেলা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ আহবায়ক কমিটির ৮৪ জন সদস্যের মধ্যে ৮৩ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।
সভা শেষে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক সহিদ উল্লাহ খাঁন সোহেল জানান, সভায় আগামি ৩ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয় এবং জেলা সম্মেলনের আগে মেয়াদ উত্তীর্ণ উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলন সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত হয়।