বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

  ঢাকা, বাংলাদেশ  |  আজকের পত্রিকা  |  ই-পেপার  |  আর্কাইভ   |  কনভার্টার  |   অ্যাপস  |  বেটা ভার্সন

বৃহস্পতিবার, জুলাই ২৫, ২০২৪

  |  ঢাকা, বাংলাদেশ  |  আজকের পত্রিকা  |  ই-পেপার  |  আর্কাইভ   |   কনভার্টার  |   অ্যাপস  |  বেটা ভার্সন

বহিস্কার করা হবে ১৯ সেপ্টেম্বর

৩৭ জেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ১৫৭

বার্তা সরণি প্রতিবেদন

বার্তা সরণি প্রতিবেদন

| অনলাইন সংস্করণ

আগামী ১৭ অক্টোবর ৬১জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে ৩৭ জেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ১৫৭ জন। জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ১৯ জন। তারা সবাই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী। মোট ৪২ জেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে চেয়ারম্যান পদে। এই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগ নেতা। আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা বলেন, দল করতে হলে দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে হবে। যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক শাস্তি প্রদান করা হবে। ১৮ সেপ্টেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এরপরও যদি কেউ বিদ্রোহী থাকে তাহলে ১৯সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্রোহীদের শাস্তি প্রদানের কার্যক্রম শরু হবে।
জাতীয় পার্টির (জাপা) তিন নেতাও তিনটি জেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে লড়বেন। তারা হলেন নারায়ণগঞ্জে জয়নাল আবেদিন, নেত্রকোনায় আসমা আশরাফ এবং গাইবান্ধায় আতাউর রহমান। তাদের মধ্যে আতাউর রহমান গতবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীকে হারিয়ে গাইবান্ধা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং বর্তমানে সেখানকার প্রশাসক। এছাড়া চট্টগ্রামে মহানগর জাপার সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব হোসেন চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে পারেন।
জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট রোউল ইসলাম ভূইয়া বলেন, ‘তিনটি জেলা ছাড়াও অন্য কোনো জেলায় আমাদের দলের কেউ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চাইলে দল থেকে বাধা দেওয়া হবে না। যেহেতু এটা দলীয় নির্বাচন নয় এবং দলীয় প্রতীকেরও কোনো বিষয় নেই—তাই জাপা কেন্দ্রীয়ভাবে এমন নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ রেজাইল ইসলাম জানান, চেয়ারম্যান পদে কয়েকজন প্রার্থী হলেও বিভিন্ন জেলা পরিষদে সাধারণ সদস্য পদে জাপার অনেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিয়েছেন জেলা জাসদের (ইনু-শিরীন) সভাপতি গোলাম মহসিন। বাংলাদেশ জাসদের (আম্বিয়া-প্রধান) কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান আল আমিন পঞ্চগড়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। উল্লেখ্য, হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাসদ এবং শরিফ নুরুল আম্বিয়ার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ জাসদ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক।
গতকাল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিনে ১৯ জেলায় চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী। তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। বিদ্রোহীদের নিয়ে কী করবে আওয়ামী লীগ- এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আমরা নির্বাচন থেকে কাউকে সরিয়ে দিতে চাই না। যে কেউ নির্বাচন করতে পারবে। এ অধিকার সবার আছে। কিন্তু দল করলে দলের শৃঙ্খলা সবাইকে মেনে চলতে হবে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে চায় আওয়ামী লীগ। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক করতে আওয়ামী লীগ কি শেষ পর্যন্ত ‘বিদ্রোহী প্রার্থীদের’ ব্যাপারে নমনীয় থাকবে?- এমন প্রশ্ন সংশ্লিষ্টদের। এ ছাড়া দু-একটি জেলায় আগের বিদ্রোহীদের মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আছে নানা প্রশ্ন। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে যে কোনো নির্বাচনই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হওয়া উচিত। সেক্ষেত্রে সবার নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ রাখতে হবে। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, কেউ নির্বাচনে না এলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবে-এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দলের কেউ বিপক্ষে গেলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তফসিল অনুযায়ী, ১৭ অক্টোবর সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ হবে। গতকাল ছিল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন। ১৮ সেপ্টেম্বর বাছাইয়ের পর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, চেয়ারম্যান পদে ১৯ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। ৬১ জেলায় চেয়ারম্যান পদে ১৬২ জন, সংরক্ষিত আসনে ৭১৫ ও সাধারণ সদস্য পদে ১৯৮৩ জন মনোনয়ন দাখিল করেছেন।
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ১৯ জন : নারায়ণগঞ্জে চন্দন শীল, সিরাজগঞ্জে আবদুল লতিফ বিশ্বাস, লালমনিরহাটে অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে রুহুল আমিন, গোপালগঞ্জে অ্যাডভোকেট মুন্সী মো. আতিয়ার রহমান, বাগেরহাটে শেখ কামরুজ্জামান টুকু, মাদারীপুরে মুনির চৌধুরী, টাঙ্গাইলে ফজলুর রহমান খান ফারুক, ঝালকাঠিতে অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, সিলেটে নাসির উদ্দিন খান, বরগুনায় জাহাঙ্গীর কবির, নওগাঁয় অ্যাডভোকেট এ কে এম ফজলে রাব্বি, ঠাকুরগাঁওয়ে মু. সাদেক কোরাইশী, ফেনীতে খায়রুল বশর মজুমদার, ভোলায় আবদুল মমিন টুলু, মুন্সীগঞ্জে মো. মহিউদ্দিন, মৌলভীবাজারে মিছবাহুর রহমান, লক্ষ্মীপুরে মো. শাহজাহান, শরীয়তপুরে ছাবেদুর রহমান খোকা।
বিদ্রোহী প্রার্থী যেখানে রয়েছে- মাগুরায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন পংকজ কুমার কুন্ডু। তাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বিদ্রোহী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন শ্রীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিহাদ মিয়া। চট্টগ্রামে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন এ টি এম পেয়ারুল ইসলাম। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন কৃষক লীগ নেতা ফয়েজুর রহমান। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আল মামুন সরকার। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম। কিশোরগঞ্জে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মো. জিল্লুর রহমান। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তিন আওয়ামী লীগ নেতা। তারা হলেন- অ্যাডভোকেট হামিদুল আলম চৌধুরী, আজিজুল হক, মো. সেলিম। খুলনায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন শেখ হারুনুর রশীদ। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারা, বিএমএ জেলা সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. শেখ বাহারুল আলম। বগুড়ায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ডা. মকবুল হোসেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নান। ফরিদপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মো. ফারুক হোসেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক মো. শাহাদাৎ হোসেন। পাবনায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আ স ম আবদুর রহিম পাকন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন। পিরোজপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন সালমা রহমান হ্যাপী। এখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন মহারাজ, নেছারাবাদ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মনি, ভান্ডারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুল্লাহ আল মামুন।
ময়মনসিংহে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন ইউসুফ খান পাঠান। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের উপকমিটির নেতা নুরুল ইসলাম রানা। চাঁদপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন ইউসুফ গাজী। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ওসমান গনি। রাজশাহীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মীর ইকবাল। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক মো. আখতারুজ্জামান। নোয়াখালীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আবদুল ওয়াদুদ পিন্টু। এখানে দলীয় প্রার্থীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা আলাবক্স টিটু, মুসফিকুর রহমান। সুনামগঞ্জে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন খায়রুল কবির রুমেন। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল হুদা মুকুট। গাজীপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মোতাহার হোসেন মোল্লা। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস এম মোকসেদ আলম। জয়পুরহাটে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন খাজা শামসুল আলম। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল আজিজ মোল্লা, রফিকুল ইসলাম রফিক। রাজবাড়ীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন এ কে এম শফিকুল মোর্শেদ। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পাংশা পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি দিপক কুন্ডু। চুয়াডাঙ্গায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মাহফুজুর রহমান। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান জেলা পরিষদের প্রশাসক শেখ সামসুল আরেদীন খোকন, যুবলীগের নেতা আরেফিন আলম রঞ্জু। দিনাজপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আজিজুল ইমাম চৌধুরী। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক তৈয়ব উদ্দিন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফরিদুল ইসলাম। নেত্রকোনায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন অসীত সরকার। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন সাবেক যুবলীগ নেতা আবু সাঈদ খান জ্যোতি। নরসিংদীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আবদুল মতিন ভূইয়া। বিদ্রোহী প্রার্থী মনির হোসেন ভূইয়া।
২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে চেয়ারম্যান পদে যারা ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হয়েছিলেন তারা এবার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থন পাননি। পাশাপাশি ঐ নির্বাচনে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর নানা কারণে যারা বিতর্কিত, তারাও এবার পাননি দলটির সমর্থন। দলীয় সমর্থন না পেয়ে এবারও যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তাদের প্রতি সতর্কতামূলক বার্তা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার গণভবনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় আওয়ামী লীগ প্রধান স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘দল সমর্থিত একক প্রার্থীর পক্ষে দলের সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। বিদ্রোহীদের আর কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। দল করতে হলে দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে হবে। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

শীত বস্ত্র বিতরণ করলো মোহাম্মদ নাসিম ফাউন্ডেশন

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:প্রয়োজনীয় শীতবস্ত্র না থাকায় খড়কুটো জ্বালিয়ে আগুনের সাহায্যে শীত নিবারণ করছে পাবনার সাঁথিয়াবাসী। শীতের তীব্রতা অনেকাংশই বেশি এখানে। এছাড়া গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির...

মেধাবি সিয়ামের পড়ালেখার দায়িত্ব নিলেন মানবিক এমপি জয়

মানবতায় এগিয়ে আসলেন সিরাজগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য ও উত্তরবঙ্গের কৃতি সন্তান প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়। এসএসসি পরীক্ষায় বাণিজ্য বিভাগ থেকে রাজশাহী বোর্ডে প্রথম...

বঙ্গবন্ধুকে ফিরে না পেলে স্বাধীনতা পূর্ণতা পেতো না : মেয়র তাপস

বার্তা সরণি প্রতিবেদক:ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যদি ১৯৭২ সালের ১০...

আগামী ১৭ অক্টোবর ৬১জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চেয়ারম্যান পদে ৩৭ জেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ১৫৭ জন। জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ১৯ জন। তারা সবাই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী। মোট ৪২ জেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে চেয়ারম্যান পদে। এই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগ নেতা। আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা বলেন, দল করতে হলে দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে হবে। যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক শাস্তি প্রদান করা হবে। ১৮ সেপ্টেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এরপরও যদি কেউ বিদ্রোহী থাকে তাহলে ১৯সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্রোহীদের শাস্তি প্রদানের কার্যক্রম শরু হবে।
জাতীয় পার্টির (জাপা) তিন নেতাও তিনটি জেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে লড়বেন। তারা হলেন নারায়ণগঞ্জে জয়নাল আবেদিন, নেত্রকোনায় আসমা আশরাফ এবং গাইবান্ধায় আতাউর রহমান। তাদের মধ্যে আতাউর রহমান গতবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীকে হারিয়ে গাইবান্ধা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং বর্তমানে সেখানকার প্রশাসক। এছাড়া চট্টগ্রামে মহানগর জাপার সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব হোসেন চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে পারেন।
জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট রোউল ইসলাম ভূইয়া বলেন, ‘তিনটি জেলা ছাড়াও অন্য কোনো জেলায় আমাদের দলের কেউ চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চাইলে দল থেকে বাধা দেওয়া হবে না। যেহেতু এটা দলীয় নির্বাচন নয় এবং দলীয় প্রতীকেরও কোনো বিষয় নেই—তাই জাপা কেন্দ্রীয়ভাবে এমন নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ রেজাইল ইসলাম জানান, চেয়ারম্যান পদে কয়েকজন প্রার্থী হলেও বিভিন্ন জেলা পরিষদে সাধারণ সদস্য পদে জাপার অনেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিয়েছেন জেলা জাসদের (ইনু-শিরীন) সভাপতি গোলাম মহসিন। বাংলাদেশ জাসদের (আম্বিয়া-প্রধান) কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান আল আমিন পঞ্চগড়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। উল্লেখ্য, হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাসদ এবং শরিফ নুরুল আম্বিয়ার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ জাসদ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক।
গতকাল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিনে ১৯ জেলায় চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী। তারা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। বিদ্রোহীদের নিয়ে কী করবে আওয়ামী লীগ- এমন প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আমরা নির্বাচন থেকে কাউকে সরিয়ে দিতে চাই না। যে কেউ নির্বাচন করতে পারবে। এ অধিকার সবার আছে। কিন্তু দল করলে দলের শৃঙ্খলা সবাইকে মেনে চলতে হবে। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সংগঠনকে শক্তিশালী করতে চায় আওয়ামী লীগ। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক করতে আওয়ামী লীগ কি শেষ পর্যন্ত ‘বিদ্রোহী প্রার্থীদের’ ব্যাপারে নমনীয় থাকবে?- এমন প্রশ্ন সংশ্লিষ্টদের। এ ছাড়া দু-একটি জেলায় আগের বিদ্রোহীদের মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে আছে নানা প্রশ্ন। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে যে কোনো নির্বাচনই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হওয়া উচিত। সেক্ষেত্রে সবার নির্বাচনে অংশগ্রহণের সুযোগ রাখতে হবে। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, কেউ নির্বাচনে না এলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবে-এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু দলের কেউ বিপক্ষে গেলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তফসিল অনুযায়ী, ১৭ অক্টোবর সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ হবে। গতকাল ছিল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন। ১৮ সেপ্টেম্বর বাছাইয়ের পর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ২৫ সেপ্টেম্বর। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, চেয়ারম্যান পদে ১৯ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। ৬১ জেলায় চেয়ারম্যান পদে ১৬২ জন, সংরক্ষিত আসনে ৭১৫ ও সাধারণ সদস্য পদে ১৯৮৩ জন মনোনয়ন দাখিল করেছেন।
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন ১৯ জন : নারায়ণগঞ্জে চন্দন শীল, সিরাজগঞ্জে আবদুল লতিফ বিশ্বাস, লালমনিরহাটে অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে রুহুল আমিন, গোপালগঞ্জে অ্যাডভোকেট মুন্সী মো. আতিয়ার রহমান, বাগেরহাটে শেখ কামরুজ্জামান টুকু, মাদারীপুরে মুনির চৌধুরী, টাঙ্গাইলে ফজলুর রহমান খান ফারুক, ঝালকাঠিতে অ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির, সিলেটে নাসির উদ্দিন খান, বরগুনায় জাহাঙ্গীর কবির, নওগাঁয় অ্যাডভোকেট এ কে এম ফজলে রাব্বি, ঠাকুরগাঁওয়ে মু. সাদেক কোরাইশী, ফেনীতে খায়রুল বশর মজুমদার, ভোলায় আবদুল মমিন টুলু, মুন্সীগঞ্জে মো. মহিউদ্দিন, মৌলভীবাজারে মিছবাহুর রহমান, লক্ষ্মীপুরে মো. শাহজাহান, শরীয়তপুরে ছাবেদুর রহমান খোকা।
বিদ্রোহী প্রার্থী যেখানে রয়েছে- মাগুরায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন পংকজ কুমার কুন্ডু। তাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বিদ্রোহী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন শ্রীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিহাদ মিয়া। চট্টগ্রামে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন এ টি এম পেয়ারুল ইসলাম। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন কৃষক লীগ নেতা ফয়েজুর রহমান। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আল মামুন সরকার। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম। কিশোরগঞ্জে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মো. জিল্লুর রহমান। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তিন আওয়ামী লীগ নেতা। তারা হলেন- অ্যাডভোকেট হামিদুল আলম চৌধুরী, আজিজুল হক, মো. সেলিম। খুলনায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন শেখ হারুনুর রশীদ। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এস এম মোর্ত্তজা রশিদী দারা, বিএমএ জেলা সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. শেখ বাহারুল আলম। বগুড়ায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ডা. মকবুল হোসেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নান। ফরিদপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মো. ফারুক হোসেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক মো. শাহাদাৎ হোসেন। পাবনায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আ স ম আবদুর রহিম পাকন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন। পিরোজপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন সালমা রহমান হ্যাপী। এখানে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন মহারাজ, নেছারাবাদ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মনি, ভান্ডারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুল্লাহ আল মামুন।
ময়মনসিংহে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন ইউসুফ খান পাঠান। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের উপকমিটির নেতা নুরুল ইসলাম রানা। চাঁদপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন ইউসুফ গাজী। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ওসমান গনি। রাজশাহীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মীর ইকবাল। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক মো. আখতারুজ্জামান। নোয়াখালীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আবদুল ওয়াদুদ পিন্টু। এখানে দলীয় প্রার্থীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা আলাবক্স টিটু, মুসফিকুর রহমান। সুনামগঞ্জে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন খায়রুল কবির রুমেন। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল হুদা মুকুট। গাজীপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মোতাহার হোসেন মোল্লা। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস এম মোকসেদ আলম। জয়পুরহাটে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন খাজা শামসুল আলম। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল আজিজ মোল্লা, রফিকুল ইসলাম রফিক। রাজবাড়ীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন এ কে এম শফিকুল মোর্শেদ। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন পাংশা পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি দিপক কুন্ডু। চুয়াডাঙ্গায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন মাহফুজুর রহমান। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান জেলা পরিষদের প্রশাসক শেখ সামসুল আরেদীন খোকন, যুবলীগের নেতা আরেফিন আলম রঞ্জু। দিনাজপুরে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আজিজুল ইমাম চৌধুরী। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক তৈয়ব উদ্দিন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফরিদুল ইসলাম। নেত্রকোনায় দলীয় সমর্থন পেয়েছেন অসীত সরকার। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন সাবেক যুবলীগ নেতা আবু সাঈদ খান জ্যোতি। নরসিংদীতে দলীয় সমর্থন পেয়েছেন আবদুল মতিন ভূইয়া। বিদ্রোহী প্রার্থী মনির হোসেন ভূইয়া।
২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে চেয়ারম্যান পদে যারা ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হয়েছিলেন তারা এবার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থন পাননি। পাশাপাশি ঐ নির্বাচনে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর নানা কারণে যারা বিতর্কিত, তারাও এবার পাননি দলটির সমর্থন। দলীয় সমর্থন না পেয়ে এবারও যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তাদের প্রতি সতর্কতামূলক বার্তা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শনিবার গণভবনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় আওয়ামী লীগ প্রধান স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘দল সমর্থিত একক প্রার্থীর পক্ষে দলের সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। বিদ্রোহীদের আর কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। দল করতে হলে দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে হবে। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হবেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক শাস্তি নিশ্চিত করা হবে।’